চট্টগ্রামে পুলিশের অভিযানে ডাকাতির ১২ লক্ষ টাকা উদ্ধার,গ্রেফতার-১

0
7

চট্টগ্রামে পুলিশের অভিযানে ডাকাতির ১২ লক্ষ টাকা উদ্ধার,গ্রেফতার-১

চট্টগ্রাম: চট্টগ্রামের সিএমপির ডাবলমুরিং মডেল থানা পুলিশের অভিযানে ডাকাতির ১২ লক্ষ টাকা উদ্ধার সহ এক জনকে গ্রেফতার করে পুলিশ।

গত ০৯ জুলাই বিকেল সাড়ে চারটার দিকে আখতারুজ্জামান সেন্টারের দি সন্দ্বীপ জুয়েলার্সের স্বত্ত্বাধিকারী প্রদীপ বণিক থানায় এসে অভিযোগ করেন, তার ১২ লাখ টাকা ডাকাতি হয়েছে। দোকানের কর্মচারী সুদীপ্ত সাহা প্রকাশ টিংকু বুথ থেকে টাকা তুলে বাসায় আসার পথে এই ডাকাতি হয়।

তিনি জানান, টিংকু সকাল সাড়ে ১১ টাকার দিকে আগ্রাবাদ সিএন্ডএফ ভবনে অবস্থিত একটি এটিএম বুথ থেকে টাকা তুলে আসার সময় কালো রঙের একটি মাইক্রোবাস তার সামনে থামে। এসময় নিজেদের ডিবি পুলিশ পরিচয় দিয়ে ৪-৫ জন লোক তাকে গাড়িতে উঠতে বলে। তিনি গাড়িতে উঠতেই তার সাথে থাকা ১২ লাখ টাকা নিয়ে নেওয়া হয়। এরপর তার কাছে ইয়াবা পাওয়া গেছে বলে মামলা দেওয়ার ভয় ভীতি দেখায়। এক পর্যায়ে গাড়ি বান্দরবানে গিয়ে থামে। সেখানে হাত ও চোখ বেঁধে তাকে পাহাড়ে ছেড়ে দেওয়া হয়। পরে সেখান থেকে ফোন করে তিনি প্রদীপ বণিককে সব জানান।

অভিযোগ পেয়েই অতিরিক্ত উপ কমিশনার (পশ্চিম) জনাব পংকজ দত্তের তত্ত্বাবধানে অফিসার ইনচার্জ জনাব মোহাম্মদ মহসীন পিপিএম(বার) এর নেতৃত্বে ডাবলমুরিং থানার টিম অভিযানে নামেন। প্রথমেই তথ্য প্রযুক্তির মাধ্যমে টিংকুর বান্দরবানে অবস্থান নিশ্চিত হয়। বর্ণনা অনুযায়ী বুথের সামনের মাইক্রোবাসও দেখা যায়। কিন্তু সেই গাড়িতে তাকে তুলে নেওয়ার তথ্য না পাওয়ায় দ্বিধাগ্রস্থ হয়ে যায় অভিযানিক টীম। ইতোমধ্যে টিংকু কে বান্দরবান থেকে থানায় আনা হয়। পুরো ঘটনা তিনি আবারও বলার পর কিছু বিষয়ে অসঙ্গতি ধরা পড়ে। তখনই সন্দেহ করা হয় কর্মচারী টিংকুকে। এরপর তাকে ব্যাপক জিজ্ঞাসাবাদের পর রাত ১ টায় স্বীকার করেন টাকাগুলো তিনিই আত্মসাৎ করেছেন! ডাকাতির ঘটনা পুরোটাই তার সাজানো! ঘটনা সবার কাছে বিশ্বাসযোগ্য করার জন্য এবং পুলিশের কাছেও কল লোকেশন যেন বান্দরবান আসে সেজন্য নিজেই সেখানে চলে যায়! এরপর তার দেওয়া স্বীকারোক্তি অনুযায়ী কোতোয়ালী থানার পাথরঘাটা এলাকায় তার বোনের বাসা থেকে ১১ লাখ ৯৯ হাজার টাকা উদ্ধার করা হয়।

টিংকু প্রদীপ বণিকের খুবই বিশ্বস্ত কর্মচারী। সে০২ বছর যাবত তার অধীনে চাকরি করছে। তার এটিএম কার্ডের সব পিনই টিংকুর জানা৷ আগের দিন রাতেই প্রদীপ বণিক তার ৪ টি এটিএম কার্ড টিংকু কে দিয়ে দেন। পরদিন ১২ লাখ টাকা তুলে ১১ টায় বাসায় ফেরার কথা তার। কিন্তু দুপুর ২ টা পর্যন্ত না আসায় এবং ফোন বন্ধ পাওয়ায় তার খোঁজ শুরু করেন প্রদীপ। এরপর ৪ টায় ফোন করে ডাকাতির সাজানো ঘটনা বলেন টিংকু। গ্রেফতার সুদীপ্ত সাহা প্রকাশ টিংকু (৩৫) চট্টগ্রামের রাঙ্গুনিয়া উপজেলার ৩নং ওয়ার্ড মহাজন বাড়ীর অসীম সাহার ছেলে। তার বিরুদ্ধে প্রদীপ বণিক বাদী হয়ে মামলা দায়ের করেছেন।

আপনার মতামত প্রকাশ করেন

আপনার মন্তব্য দিন
আপনার নাম এন্ট্রি করুন