ঝিকরগাছার মেয়েকে খুঁজে না পেয়ে থানায় অভিযোগ

0
10

ঝিকরগাছার পল্লীতে মেয়েকে খুঁজে না পেয়ে থানায় অভিযোগ

শাহাবুদ্দিন মোড়ল , ঝিকরগাছা : যশোরের ঝিকরগাছার পল্লীতে মেয়েকে খুঁজে না পেয়ে থানায় লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছেন শরীফপুর গ্রামের মৃত রবিউল ইসলামের ছেলে সাইদুর ইসলাম (৫৬)। তার উল্লেখিত অভিযোগে বিবাদী করেছেন জামাই কৃষ্ণনগর সরদার পাড়া গ্রামের আজম সরদারের ছেলে জুয়েল রানা ডলার (৩২) ও বেয়াই আজম সরদার (৫৫)।
থানার লিখিত অভিযোগের ভিত্তিতে জানা যায়, ডলারের সাথে ১১ বছর পূর্বে ইসলামী শরীয়ত মোতাবেক বাদীর মেয়ে নুসরাত জাহান শাবনাজ (২৮) এর সহিত বিবাহ হয়। বর্তমানে তাদের আট বছরের একটি কন্যা সন্তান রয়েছে। বিবাহের পর হইতে বিভিন্ন সময় বাদীর বাড়ি থেকে নগদ টাকা এবং বিভিন্ন ধরনের সাংসারিক প্রয়োজনীয় অপ্রয়োজনীয় জিনিসপত্র নিয়ে আসতে বলে। বাদীর মেয়ে আনতে রাজি না হলে বিবাদীগণ বাদীর মেয়েকে অকথ্য ভাষায় গালিগালাজসহ বিভিন্ন ভয়-ভীতি দেখায়। এমতাবস্থায় এক নং বিবাদের শহীদ গত ১৬ এপ্রিল সকাল অনুমান ১০ টার সময় বাদীর মেয়ের পারিবারিক বিষয় নিয়ে কথা কাটাকাটি হয়। এই কথা কাটাকাটির এক পর্যাযে বিবাদীগণ বাদীর মেয়েকে মারপিট করে অজ্ঞাত স্থানে আটকে রেখেছে বলে অভিযোগের উল্লেখ করেছেন। এরপর দুপুর অনুমান ১টার দিকে বাদীর মোবাইলে ফোন করে বাদীর মেয়েকে বিবাদীগণ তাদের বাড়িতে পাচ্ছে না বলে জানালে বাদী এবং বাদীর স্ত্রী বিবাদীদের বাড়িতে গিয়ে বাদীর নাতনি সহ আশেপাশের লোকজনের কাছে মেয়ের কথা জানতে চাইলে তারা বলেন যে বিবাদীগণ বাদীর মেয়েকে মারপিট করে তাদের বাড়ি থেকে তাড়িয়ে দিয়েছেন। বাদী এই কথা শুনে ১ নং বিবাদ এর কাছে উক্ত বিষয়ে কারণ জানতে চাইলে বাদীকে অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ সব মারপিট করার হুমকি প্রদান করে বিবাদেরদের বাড়ি থেকে তাড়িয়ে দেয়। এমনকি বিবাদীগণ বাদীকে এবং বাদীর স্ত্রীকে মারপিট করার হুমকি প্রদান করে বলে যে উক্ত বিষয় নিয়ে বেশি বাড়াবাড়ি করলে পরিনাম খুব খারাপ হবে ও তাদের মেয়ের জীবনে বড় ধরনের ক্ষতি সাধন করবে বলে হুমকি দিয়েছে। বাদীর মেয়ে বাদীর নিকট থেকে বিভিন্ন সময়ে নগদ টাকাসহ সাংসারিক জিনিসপত্র অনুমান ৫ লক্ষ টাকার এনে দেয় বলে অভিযোগ লিপিবদ্ধ করা হয়েছে।
ঘটনার বিষয়ে জুয়েল রানা ডলার বলেন, আমিই ডলার। আমাদের সম্পর্কের মাধ্যমে বিবাহ হয়। আমি কখনো ওকে মারিনী এবং কখনো ওকে বাপের বাড়ি থেকে টাকা পয়সা আনতে বলিনি। আমিও একটি জিডি করেছি।
থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) কামাল হোসেন ভূঁইয়া বলেন, ঘটনার বিষয়ে আমার নিকট সাইদুর ইসলাম নামের এক ব্যাক্তি অভিযোগ করেছেন। একই ঘটনায় তার জামাই জুয়েল রানা ডলার তার স্ত্রী হারিয়ে যাওয়ার বিষয়ে সাধারণ ডায়রী করেছেন। উভয়ের বিষয়ে তদন্ত চলমান রয়েছে। তদন্ত শেষে বোঝা যাবে তাদের মধ্যে মুল রহস্য কি?

আপনার মতামত প্রকাশ করেন

আপনার মন্তব্য দিন
আপনার নাম এন্ট্রি করুন