বাঙালি জাতির প্রথম শহীদ মিনার!

0
4

বাঙালি জাতির প্রথম শহীদ মিনার!

সংগ্রহে: এম হায়দার চৌধুরী।
বাঙালি জাতির মাতৃভাষার অধিকার রক্ষাকল্পে বাংলা ভাষাকে ঘিরে আন্দোলনের সূচনা হয়। তদানীন্তন পাকিস্তানে রাষ্ট্রভাষা বাংলা হিসেবে প্রতিষ্ঠার লক্ষ্যে গণদাবির বহিঃপ্রকাশ ঘটে। ১৯৫২ সালের ২১শে ফেব্রুয়ারিতে এ আন্দোলন চূড়ান্ত রূপ ধারণ করে। ফলস্বরূপ বাংলাভাষার সম-মর্যাদার দাবিতে পূর্ব বাংলায় আন্দোলন দ্রুত দানা বেঁধে ওঠে। ওই সময় আন্দোলন দমনে পুলিশ ১৪৪ ধারা জারির মাধ্যমে ঢাকা শহরে মিছিল, সমাবেশ ইত্যাদি বেআইনি ও নিষিদ্ধ ঘোষণা করে।
১৯৫২ সালের ২১শে ফেব্রুয়ারি (৮ই ফাল্গুন ১৩৫৮) এ আদেশ অমান্য করে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের বহু সংখ্যক ছাত্র ও প্রগতিশীল কিছু রাজনৈতিক কর্মী মিলে বিক্ষোভ মিছিল শুরু করেন। মিছিলটি ঢাকা মেডিকেল কলেজের কাছাকাছি এলে পুলিশ ১৪৪ ধারা ভঙ্গের অজুহাতে আন্দোলনকারীদের ওপর গুলিবর্ষণ করে। এসময় গুলিতে নিহত হন বাদামতলী কমার্শিয়াল প্রেসের মালিকের ছেলে রফিক, সালাম, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের রাষ্ট্রবিজ্ঞান বিভাগের এম.এ. ক্লাসের ছাত্র বরকত ও আব্দুল জব্বারসহ আরও অনেকে।

এরপর ২২ ফেব্রুয়ারি মেডিকেল কলেজের ছাত্ররা সিদ্ধান্ত নেন যে, যে জায়গায় গুলি বর্ষণ করা হয়েছে সেখানেই রাতারাতি এই অমর শহীদদের স্মৃতির উদ্দেশে শহীদ মিনার গড়ে তুলতে হবে। স্বতঃস্ফুর্তভাবে গড়ে উঠেছিল এর পরিকল্পনা– দলমতনির্বিশেষে সকল ছাত্র শহীদ মিনার তৈরির পরিকল্পনা গ্রহণ করেন। সাঈদ হায়দারের নকশা ও ঢাকার মেধাবী মেডিকেল ছাত্র বদরুল আলমের লেখার উপর ভিত্তি করে ২২ ফেব্রুয়ারি রাত থেকে শহীদ মিনার তৈরির পরিকল্পনা নেওয়া হয়। ২৩ তারিখ সকাল থেকে শুরু করে সারারাত কার্ফু থাকা সত্ত্বেও সেখানে কাজ হয়।

২৫ ফেব্রুয়ারি নুরুল আমীন সরকার ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় এবং শহরের সমস্ত ছাত্রাবাস অনির্দিষ্টকালের জন্য বন্ধ ঘোষণা করে। ২৬ ফেব্রুয়ারি দুপুর ও অপরাহ্নের মধ্যেই সর্বত্র থমথমে পরিস্থিতি বিরাজ করে। এ অবস্থায় নাজিমুদ্দিন-নুরুল আমীনের মুসলিম লীগ সরকারের সশস্ত্র বাহিনী নিশ্চিহ্ন করে দেয় বাঙালির অন্তরের প্রথম স্মৃতিস্তম্ভ শহীদ মিনারটি। কিন্তু এরই মধ্যে সমস্ত বাঙালির অন্তরে গেঁথে গিয়েছিল এই স্মৃতির মিনার।

আপনার মতামত প্রকাশ করেন

আপনার মন্তব্য দিন
আপনার নাম এন্ট্রি করুন