মৌলভীবাজারের কমলগঞ্জ এলাকায় মাগুরছড়া গ্যাসকূপে বিস্ফোরণের ২ যুগ!

0
4

মৌলভীবাজারের কমলগঞ্জ এলাকায় মাগুরছড়া গ্যাসকূপে বিস্ফোরণের ২ যুগ!

জি-নিউজ ডেস্ক:: আজ ১৪ জুন মাগুরছড়া ট্রাজেডির ২৪তম বার্ষিকী। ১৯৯৭ সালের ১৪ জুন রাত ১টা ৪৫ মিনিটে এক প্রচন্ড শব্দে মাগুরছড়া গ্যাসকূপে বিস্ফোরণে কেঁপে উঠেছিল গোটা কমলগঞ্জ এলাকা। আগুনের লেলিহান শিখা দেখা গিয়েছিল মৌলভীবাজার হবিগঞ্জসহ আশপাশের জেলা থেকে। ভীত-সন্ত্রস্ত লোকজন ঘরের মালামাল রেখে প্রাণভয়ে ছুটাছুটি করছিল দিগ্বিদিগ।
প্রায় ৫০০ ফুট উচ্চতা সম্পন্ন আগুনের লেলিহান শিখা লন্ডভন্ড করে দিয়েছিল বিস্তীর্ণ বনাঞ্চল। ওই আগুনের শিখায় গ্যাসফিল্ড সংলগ্ন লাউয়াছড়া রিজার্ভ ফরেষ্ট, মাগুরছড়া খাসিয়াপুঞ্জি, জীববৈচিত্র্য, বিদ্যুৎ সঞ্চালন লাইন, ফুলবাড়ী চা বাগান, সিলেট-ঢাকা ও সিলেট- চট্টগ্রাম রেলপথ এবং কমলগঞ্জ-শ্রীমঙ্গল সড়কের ব্যাপক ক্ষতি হয়েছিল। দেশের ইতিহাসে ভয়াবহতম এ অগ্নিকান্ডে ক্ষতিগ্রস্থ হয় ঘন বনাঞ্চল ও পার্শ্ববর্তী বিপুল সংখ্যক স্থাপনা।

উল্লেখ্য, কমলগঞ্জ উপজেলার সংরক্ষিত বনাঞ্চলের ভিতরে লাউয়াছড়া ফরেষ্ট বিটের অভ্যন্তরে মাগুরছড়া এলাকায় ১৯৮৪-৮৬ ও ১৯৯৪ সালে সাইসনিক সার্ভেতে গ্যাস মজুদের সন্ধান পাওয়া যায়। এ প্রেক্ষিতে উৎপাদন ভাগাভাগির চুক্তিতে ১৯৯৫ সালের ১১ জানুয়ারী মার্কিন বহুজাতিক তেল ও গ্যাস উত্তোলণকারী কোম্পানী অক্সিডেন্টালের সাথে বাংলাদেশ সরকারের সাথে চুক্তি স্বাক্ষরিত হয় এবং গ্যাস উত্তোলনের জন্য ৬৫০ কোটি টাকা ব্যয়ের অনুমতি প্রদান করা হয়। দায়িত্ব গ্রহণের পর অক্সিডেন্টাল কোম্পানী মাগুরছড়ায় গ্যাস ফিল্ডের ড্রিলিং কাজের জন্য সাবলিজ প্রদান করেছিল ডিউটেক নামের জার্মান কোম্পানীর কাছে। গ্যাস উত্তোলনে ১৪ নং ব্লকের মাগুরছড়াস্থ মৌলভীবাজার-১ গ্যাসকূপের খননকালে ৮৫০ মিটার গভীরে যেতেই ১৯৯৭ সালের ১৪ জুন মধ্য রাতে ঘটে ভয়াবহ বিষ্ফোরণ। এ সময় শ্রীমঙ্গল-কমলগঞ্জ ১৫ কিঃমিঃ উচ্চভোল্টেজ বৈদ্যুতিক লাইন পুড়ে নষ্ট হয়। কুলাউড়া, বড়লেখা ও কমলগঞ্জ উপজেলার ৫০ টি চাবাগানে দীর্ঘদিন স্থায়ীভাবে বিদ্যুৎ সংকট দেখা দেয়। ৬৯৫ হেক্টর বনাঞ্চলের বৃক্ষ সম্পদ, পরিবেশ ও জীববৈচিত্রের ব্যাপক ক্ষতি হয়। এছাড়া ২৪৫ বিলিয়ন ঘনফুট গ্যাস পুড়ে নষ্ট হয়, যার বাজার মূল্য দাঁড়ায় ৫০ কোটি ডলার। গ্যাস বিস্ফোরনের পর অক্সিডেন্টাল তাদের সহোদর ইউনোকলের কাছে দায়িত্ব দিয়ে এ দেশ ত্যাগ করলে দুই বছর পর ক্ষতিগ্রস্তরা আংশিক ক্ষতিপুরন পায়।

দুর্ঘটনার পর তৎকালীন সরকারের খনিজ ও জ্বালানী মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব মাহফুজুল ইসলামকে প্রধান করে একটি তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছিল। তদন্ত কমিটি ১৯৯৭ সালের ৩০ জুলাই মন্ত্রণালয়ে রিপোর্ট পেশ করে। তাদের রিপোর্ট অনুযায়ী অক্সিডেন্টালের দায়িত্বহীনতাকেই দায়ী করা হয়। কিন্তু আজও মাগুরছড়া গ্যাস বিষ্ফোরণে ক্ষয়ক্ষতির তালিকা জনসম্মুখে প্রকাশ করা হয়নি। ক্ষতিগ্রস্থদের সকলে পায়নি ক্ষতিপূরণ। পূরণ হয়নি কমলগঞ্জবাসীর ঘরে ঘরে গ্যাস সংযোগের দাবীও।

মাগুরছড়া ট্র্যাজেডির ২৪তম বার্ষিকী উপলক্ষে ১৪ জুন সোমবার কমলগঞ্জ ও শ্রীমঙ্গলের বিভিন্ন পরিবেশবাদী সংগঠন তাদের দাবীর স্বপক্ষে বিভিন্ন কর্মসূচীর মধ্যে দিয়ে দিবসটি পালন করবে।

আপনার মতামত প্রকাশ করেন

আপনার মন্তব্য দিন
আপনার নাম এন্ট্রি করুন