লাউয়াছড়া জাতীয় উদ্যানে নতুন প্রজাতির ‘সিংহ বানর’

0
5

লাউয়াছড়া জাতীয় উদ্যানে নতুন প্রজাতির ‘সিংহ বানর’

বিশেষ প্রতিনিধি:: মৌলভীবাজার জেলার লাউয়াছড়া জাতীয় উদ্যানের নানান প্রজাতির জীবজন্তুর মধ্যে একটি হলো সিংহ বানর বা উল্টোলেজি বানর। কেশরের জন্য এই বানরকে ‘সিংহ বানর’ আবার লেজ উল্টে থাকার কারণে এটিকে ‘উল্টোলেজি বানরো’ বলা হয়। লাউয়াছড়া জাতীয় উদ্যানের নানান প্রজাতির জীবজন্তুর মধ্যে এটি একটি আকর্ষনীয় প্রাণী। এই জাতের বানরকে উল্টোলেজি বানর বা ছোট লেজি বানর অথবা কেশরওয়ালা ‘সিংহ বানর’ বলা হয়। আন্তর্জাতিক প্রকৃতি ও প্রাকৃতিক সম্পদ সংরক্ষণ সংঘ (আইইউসিএন) এ প্রজাতিকে ‘সঙ্কটাপন্ন’ বিবেচনা করে লাল তালিকায় অন্তর্ভুক্ত করেছে। বাংলাদেশে ২০১২ সালের বন্য প্রাণী সংরক্ষণ আইনে এরা সংরক্ষিত প্রাণী।

এ প্রজাতির বানরের গায়ের রং হালকা সোনালি থেকে বাদামি। তবে ওপরের অংশ জলপাই ও ধূসর আর নিচের দিক ধূসর সাদা। মাথার মাঝখানটা চ্যাপ্টা ও কালচে রঙের। বয়স্ক বানরের মাথায় কখনো কখনো সিংহের মতো কেশর দেখা যায়। ১৬২ থেকে ১৮৬ দিন পর স্ত্রী বানর একটি বাচ্চা দেয়। এদের গড় আয়ু ১০ থেকে ১২ বছর। এই প্রজাতির বানর গভীর সবুজ বনে বাস করে। এদের সচরাচর দেখা যায় না। এরা ফলমূল ও কচিপাতা খায়।
এই বানরকে ইংরেজিতে বলে Northern pig-tailed macaque। কমলগঞ্জের লাউয়াছড়া জাতীয় উদ্যান ছাড়াও হবিগঞ্জের সাতছড়ি জাতীয় উদ্যান ও রেমা-কালেঙ্গা বন্য প্রাণী অভয়ারণ্যে এই প্রজাতির বানর দেখা যায়। পুরুষ, স্ত্রী ও বাচ্চা মিলে ২০ থেকে ২৫টি বানর দল বেঁধে বাস করে।
ছোটলেজি বানর এরই মধ্যে খাদ্য সংকটের কারণে বিলুপ্তির দিকে অগ্রসর হচ্ছে।

বন্য প্রাণী ব্যবস্থাপনা ও প্রকৃতি সংরক্ষণ বিভাগের রেঞ্জ কর্মকর্তা মো. শহিদুল ইসলাম বলেন, অতিসংকটাপন্ন উল্টোলেজি বানরের ছোট–বড় মিলিয়ে একটি দল এখানে বাস করছে। অতিবিপন্ন ও সংকটাপন্ন বলে বন্য প্রাণী ব্যবস্থাপনা ও প্রকৃতি সংরক্ষণ বিভাগ এদের প্রতি সতর্কতার সঙ্গে নজরদারি করছে।

আপনার মতামত প্রকাশ করেন

আপনার মন্তব্য দিন
আপনার নাম এন্ট্রি করুন