শ্রীপুরে ৮ ইউপি নির্বাচন,নিরাপত্তা সহ ভোটাধিকার প্রয়োগের সুযোগ চান ভোটাররা

0
177

নিজস্ব প্রতিবেদক(গাজীপুর)ঃ
গাজীপুর শ্রীপুরের ৮ ইউনিয়নের নির্বাচনী হালচাল।
পঞ্চম ধাপের নির্বাচনী তফসিলে শ্রীপুর উপজেলার ৮ ইউনিয়ন পরিষদের নির্বাচনে আগামী ৫ জানুয়ারী ভোট গ্রহণের দিন ধার্য্য করেছে নির্বাচন কমিশন, সেই লক্ষ্যে প্রচার প্রচারণার শেষ সময়ে ব্যাপক প্রচারণায় ব্যাস্ত সময় পার করছে চেয়ারম্যান,মেম্বার এবং সংরক্ষিত আসনে প্রতিদ্বন্দ্বী নারী প্রার্থীরা,৮ ইউনিয়ন পরিষদ হলো গোসিংঙ্গা, রাজাবাড়ী, প্রহলাদপুর,বরমী,কাওরাইদ, তেলিহাটি, মাওনা এবং গাজীপুর ইউনিয়ন পরিষদ। আর এ-সব ইউনিয়নের নির্বাচনী সার্বিক পরিস্থিতি সরেজমিনে খোঁজ নিয়ে, ভোটার এবং প্রার্থীদের সাথে কথা বলে জানাজায় নির্বাচনী হালচাল, সরেজমিন ঘুরে চোখে পরেছে ভোটারদের মাঝে কিছুটা ভয় উৎকন্ঠা এবং ভোট উৎসবের আমেজ। ৮ ইউনিয়নের বিভিন্ন ভোটারদের সাথে কথা বলে জানাজায় অবাধ সুষ্ঠু নিরপেক্ষ নির্বাচনী পরিবেশ নিশ্চিত করতে পারলে তাঁরা আনন্দ উৎসবের মধ্য দিয়ে তাদের পছন্দের প্রার্থীকে ভোটাধিকার প্রয়োগ করবে, তবে কিছু কিছু এলাকায় ভোটারদের অভিযোগ, ভোটের আগেই তাদেরকে নানাভাবে হুমকি ধামকি দিয়ে ভয় বীথী দেখাচ্ছে নৌকা প্রতীকের প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থী এবং তাদের কর্মী সমর্থকরা,এবং বেশীরভাগ স্বতন্ত্র প্রার্থীদের অভিযোগ সরকার দলীয় নৌকার প্রার্থী এবং তাদের কর্মী সমর্থকেরা প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থী এবং তাদের কর্মী সমর্থকদের নানাভাবে প্রচার কাজে বাধা প্রধান সহ হুমকি ধামকি দিয়ে যাচ্ছে প্রতিনিয়ত, কিছু কিছু ইউনিয়নে- বিশেষ করে প্রহলাদপুর গিয়ে দেখা যায় স্বতন্ত্র ১ প্রার্থীর আনারস প্রতীকের কোন পোস্টার ই চোখে পরেনি! এমনকি প্রার্থী বা তার লোকজন ভয়ে নির্বাচনী প্রচার প্রচারণা বা কোন কার্যক্রম পরিচালনা করতে পারছেনা এমনকি বাড়ীতেও থাকতে পারছেনা অনেকে, তবে নৌকা প্রতীকের প্রার্থী এ-সব অভিযোগ অস্বীকার করে উল্টো অভিযোগ করেন যে স্বতন্ত্র প্রার্থীর লোকজন নৌকা সমর্থকের উপর হামলা চালিয়ে মোটর সাইকেল ভাংচুর সহ একাধিক নেতা কর্মীকে আহত করেন এবং এবিষয়ে শ্রীপুর মডেল থানায় লিখিত অভিযোগও দায়ের করেন।
রাজাবড়ী,গোসিংঙ্গা,বরমী,কাওরাইদ,তেলিহাটি,মাওনা এবং গাজীপুর ইউনিয়নে নৌকা প্রার্থীদের বিরুদ্ধে প্রায় একই অভিযোগ স্বতন্ত্র প্রার্থী এবং তাদের কর্মী সমর্থকদের। ৮ ইউনিয়নে নৌকা প্রতীকের প্রার্থীদেরও অভিযোগের শেষ নেই, বেশির ভাগ ক্ষেত্রে তাদের অভিযোগ স্বতন্ত্র প্রার্থীর কর্মী সমর্থকরা নানাভাবে প্রচার কাজে বাধা সহ নির্বাচনী অফিস ভাংচুর করে,বরমী এবং তেলিহাটি থেকে নৌকা প্রার্থীরা এবিষয়ে শ্রীপুর মডেল থানায় লিখিত অভিযোগ দায়েরের প্রেক্ষিতে মামলাও হয়েছে বলে জানিয়েছেন ওসি শ্রীপুর মডেল থানা খোন্দকার ইমাম হোসেন,তবে নির্বাচনে আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি মোকাবিলায় শতভাগ প্রস্তুত রয়েছে পুলিশ।
তবে অবাধ সুষ্ঠু নিরপেক্ষ একটি নির্বাচন এবং কেন্দ্রে ফলাফল ঘোষণার দাবি প্রায় সকল প্রার্থী এবং ভোটারদের।
এসব বিষয়ে শ্রীপুর উপজেলা প্রধান নির্বাচন কর্মকর্তা নোমান এর সাথে কথা বললে তিনি জানান, এখন পর্যন্ত নির্বাচন পরিচালনা নিয়ে তিনি সন্তুষ্ট তবে বিছিন্ন কিছু ঘটনা ছাড়া বড় কোন বিশৃঙ্খলার খবর তিনি জানেন না, কেউ কোন অভিযোগ করলে সাথে সাথে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করার চেষ্টা করছি, তবে অনেক প্রার্থী অভিযোগ করে বলেন নির্বাচনে দায়িত্ব প্রাপ্ত কর্মকর্তাদের কাছে আচরণ বিধি লঙ্ঘন সহ যেকোনো অনিয়ম অসংগতির বিষয়ে লিখিত অভিযোগ দিলেও সমস্যা সমাধানে তেমন কোন ব্যাবস্থা নেননা।
উপজেলা প্রধান নির্বাচন কর্মকর্তা আরও বলেন নির্বাচন অবাধ সুষ্ঠু নিরপেক্ষ করতে সবরকমের ব্যাবস্থা তাদের রয়েছে এবং আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে সর্বক্ষণ মাঠে নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেটের নেতৃত্বে মোবাইল টিম টহল জোরদার সহ বাংলাদেশ পুলিশ, RAB বিজিবি সহ গোয়েন্দা সংস্থার সদস্যরা মাঠে সক্রিয় থাকবে।
সকল কিছুর পর ভোটারদের একটাই চাওয়া, নিরাপদ ভাবে তাদের পছন্দের প্রার্থীকে ভোটাধিকার প্রয়োগের মাধ্যমে, আগামী ৫ বছরের জন্যে প্রতিনিধি নির্বাচিত করে ভোটের পবিত্র আমানত রক্ষা করতে সরকারের পক্ষ থেকে সার্বিক ব্যবস্থা গ্রহণের জোর দাবি জানান সকল পর্যায়ের ভোটাররা।

আট ইউনিয়ন পরিষদগুলো হলো, হলো- মাওনা, গাজীপুর, বরমী, তেলিহাটি, কাওরাইদ, রাজাবাড়ি, গোসিঙ্গা ও প্রহলাদপুর।

উল্লেখ্য, মাওনা ইউনিয়নে মোট কেন্দ্র ১৭টি, মোট ভোটার ৩৯ হাজার ৪১৪ জন। ঝুঁকিপূর্ণ কেন্দ্র ৫টি।
গাজীপুর ইউনিয়নে মোট কেন্দ্র ১৬টি, ভোটার ৩৮ হাজার ৮৫৬জন। ঝুঁকিপূর্ণ কেন্দ্র ৪টি।
বরমী ইউনিয়নে মোট কেন্দ্র ২১টি, ভোটার ৫১ হাজার ৩৮৯ জন। ঝুঁকিপূর্ণ কেন্দ্র ৬টি।
তেলিহাটি কেন্দ্র ১৮টি, ভোটার সংখ্যা ৪২,১০১ জন, ঝুঁকিপূর্ণ কেন্দ্র ৬ টি। কাওরাইদ ইউনিয়নে মোট কেন্দ্র ১৮টি, ভোটার সংখ্যা ৪০ হাজার ৮৩৯ জন। ঝুঁকিপূর্ণ কেন্দ্র সংখ্যা ৫টি। রাজাবাড়ি ইউনিয়নে মোট কেন্দ্র ১৭ টি, ভোটার প্রায় ৩৬ হাজার ৮০৮ জন।ঝুঁকিপূর্ণ কেন্দ্র ৭টি।
গোসিঙ্গা ইউনিয়নে মোট কেন্দ্র ১২টি, ভোটার ২৮ হাজার ২৪৬ জন, ঝুঁকিপূর্ণ কেন্দ্র ৪টি।
প্রহলাদপুর ইউনিয়নে মোট কেন্দ্র ১১টি, ভোটার ২২ হাজার ৭৮১ জন, ঝুঁকিপূর্ণ কেন্দ্র ৮টি।

আপনার মতামত প্রকাশ করেন

আপনার মন্তব্য দিন
আপনার নাম এন্ট্রি করুন