শ্রীপুর সরকারি পাইলট স্কুলের সংক্ষিপ্ত ইতিহাস

0
12

১৯৩৬ইং সালে সর্বজনাব মরহুম কালু মন্ডল সাহেব,মরহুম হাজী হাছেন আলী মন্ডল,মরহুম হাজী ছালে আহাম্মদ মন্ডল ও স্হানীয় গন্যমান্য বিদ্যুৎসাহীদের সহযোগীতায় একটি ইংরেজি মাধ্যম স্কুল স্হাপনের উদ্যোগ নেন এবং১৯৪২ইং সালে তাঁদের উদ্যোগে অক্ষয় পরামানিক মহাশয়ের গুদামঘরে শ্রীপুর উচ্চ বিদ্যালয়ের কাজ আরম্ভ হয়।তখন প্রধান শিক্ষক ছিলেন ময়মনসিংহের বড়বাজারের অধিবাসী শ্রীযুক্ত বাবু শচীনদ্র মোহন সেন বনিক।পরবর্তীতে স্কুল টি বতর্মান মাঠে স্হানান্তরিত হয়।কিছু কাল পরে স্কুলের প্রধান শিক্ষক নিযুক্ত হন নেত্রকোনা জেলার মুকছেদ উদ্দিন বিশ্বাস।

১৯৫৫ইং সালে উক্ত হাইস্কুলের প্রধান শিক্ষাক নিযুক্ত হন প্রাক্তন পাকিস্তান জাতীয় পরিষদের সদস্য জনাব মরহুম আহাম্মদ আলী মন্ডল। ১৯৫৬ইং সালে তিনি চাকরি ইস্তফা দিলে, প্রধান শিক্ষক নিযুক্ত হন গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের প্রথম প্রধানমন্ত্রী শহীদ তাজ উদ্দিন আহমদ সাহেব।১৯৬০ ইং সালে প্রধান শিক্ষক নিযুক্ত হন জনাব মরহুম আখকারুজ্জামান পাঠান।তার পর মরহুম লুৎফর রহমান সাহেব।তার পর মরহুম সামছু উদ্দিন মন্ডল সাহেব।তার আমলেই বিদ্যালয়টি পাইলট প্রকল্পের আওতায় আসে।পরবর্তীতে প্রধান শিক্ষক নিযুক্ত হন মরহুম মফিজ উদ্দিন মন্ডল। তার আমলে বিদ্যালয়টির কারিগরী শিক্ষা চালু হয়।পরিচালনা পরিষদ ও শিক্ষকদের প্রচেষ্টায় স্কুলের পূর্ব পার্শে এক বিঘা জমি মরহুম ডাঃ আহসান উল্লাহ সাহেবর নিকট থেকে দান গ্রহণ করা হয়। (এই জমি না পেলে কারিগরী শিক্ষা চালু করা যেতনা) কৃতজ্ঞতা জানাই ডাক্তার সাহেবের পরিবারকে।
স্কুলে বেশ কিছু দিন প্রধান শিক্ষক না থাকায় জনাব আলঃসামাদ তালুকদার এবং মরহুম মোঃ আলা উদ্দিন সাহেব ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষকের দায়িত্ব পালন করেন।
বতর্মানে স্কুল টি সরকারি করন করা হয়েছে।প্রধান শিক্ষক নিযুক্ত হন জনাব মনিরুল হাছান মন্ডল।
আমার খুব গর্ভ হচ্ছে আমি এই স্কুলের ছাত্রএবং শিক্ষক ছিলাম,আজ আমার ছাত্র আমার স্কুলের প্রধান শিক্ষক!
>><>>আমাদের সময় প্রধান শিক্ষক ছিলেন সর্ব জনাব মরহুম আখতারুজ্জামান পাঠান,আলঃলুৎফর রহমান।আল্লাহ পাক তাঁদের কে বেহেস্ত নছিব করুন।
বিভিন্ন বিষয়ে পাঠদান করতেনঃসর্ব জনাব মরহুম মাওঃইয়াকুবআলী, বাবু বলাই চন্দ্র শীল, মোঃহাবিবুর রহমান মন্ডল,মাওঃআঃ বারি বন্দুক শি, মোহাম্মদ আলী, মোঃসামসু উদ্দিন মন্ডল মোঃমোমতাজ উদ্দিন মন্ডল, মোঃহযরত আলী মোল্লা ও অধ্যক্ষ মোঃ নুরুল হক।
আল্লাহ পাক আমাদের শ্রদ্ধেয় শিক্ষকদের কে মাফ করুন এবং জান্নাত বাসি করুণ।
সর্ব জনাবঃমোঃইউনুস আলী, মোঃআঃহক পাঠান,মোঃরুহুল আমিন,মোঃ আবুল কালাম আজাদ, মোঃআঃহক,মোঃ হাফিজ উদ্দিন, মোঃআঃ জাব্বার ও মোঃ আমজাদ হোসেন। আল্লাহ পাক তাঁকে নেক হায়াত দান করুন।
>>>১৯৫১ সালে আমাদের বিদ্যালয় থেকে এনট্রেন্স পরীক্ষায় কোলকাতা বোর্ড থেকে প্রথম বিভাগে পাশ করার জন্য জনাব মরহুম মোহাম্মদ আলী সাহেব কে স্বর্ন পদক প্রদান করা হয় বিদ্যালয়ের ৫০ বছর পুর্তি অনুষ্ঠানে। এই অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন ঢাকা সিটি করপোরেশনের সাবেক মেয়র মরহুম সাদেক হোসেন খোকা,বিশেষ অতিথি ছিলেন মরহুম আহাম্মদ আলী মন্ডল, সভাপতি ছিলেন মরহুম মোঃমফিজ উদ্দিন মন্ডল ও সম্পাদক ছিলাম আমি।
বিদ্যালয়ের আমার সহকর্মী যারা মৃত্যু বরন করেছেনঃসর্ব জনাব মরহুম, আলঃ আবুল হোসেন,আঃ কাদির খান, মোঃআলাউদ্দিন, বাবু মাধব চন্দ বসু ও করনিক আঃরশিদ।
আল্লাহ পাক তাঁদেরকে মাফ করে দিন এবং জান্নাত বাসি করুণ।
বতর্মানে যারা বিদ্যালয়ে কর্মরত রয়েছেন তাদের কে আল্লাহ পাক হেফাজত করুন এবং নেক হায়াত দান করুন। আমিন
>>>বিদ্যালয়ের সকল প্রাক্তন ছাত্র/ছাত্রী যারা চাকরি / ব্যবসা করছে এবং যারা লেখা পড়া করছে সবাই কে আল্লাহ পাক দীর্ঘ আয়ূ দান করুন এবং নেক আমলা করার তাওফিক দান করুন, আমিন।

আপনার মতামত প্রকাশ করেন

আপনার মন্তব্য দিন
আপনার নাম এন্ট্রি করুন