সংবাদ প্রকাশের পর- পাল্টে গেছে ঝিনাইগাতীর হাতিবান্ধা হদিপাড়া স:প্রা:বিদ্যালয়ের চিত্র

0
10

সংবাদ প্রকাশের পর- পাল্টে গেছে ঝিনাইগাতীর হাতিবান্ধা হদিপাড়া স:প্রা:বিদ্যালয়ের চিত্র

মোঃজিয়াউল হক, শেরপুর প্রতিনিধি : অবিশ্বাস্য হলেও সত্য যে, সোস্যাল মিডিয়া সহ বিভিন্ন অন-লাইন ও পত্রিকাতে “৪শিক্ষকের বিপরীতে ৩ শিক্ষার্থী” শিরোনামে সংবাদ প্রকাশের ফলে রাতারাতি পাল্টে গেছে শেরপুরের ঝিনাইগাতী উপজেলার হাতিবান্ধা হদিপাড়া স:প্রা:বিদ্যালয়ের চিত্র। ২২নভেম্বর মঙ্গলবার বিকাল ৩ঘটিকার সময় অত্র বিদ্যালয়ে সরেজমিনে গিয়ে দেখা মেলে ভিন্ন চিত্র। যেখানে আগের দিন সোমবার ওই বিদ্যালযের শিক্ষার্থী ছিল ৩জন। সেখানে মঙ্গলবার ১ম ও ২য় শ্রেণির শিক্ষার্থী ছাড়াও ৩য় শ্রেণিতে ১৪ জন, ৪র্থ শ্রেণিতে ১৭ জন এবং ও ৫ম শ্রেণিতে ২ জন শিক্ষার্থীদের দেখা মেলে।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, সংবাদ প্রকাশের জের ধরে উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা (ভারপ্রাপ্ত) নুরুন নবী’র নির্দেশে সোমবার দিবাগত রাতেই ওই বিদ্যালয়ের শিক্ষক ও ম্যানেজিং কমিটির সদস্যরা প্রতিটি শিক্ষার্থীর বাড়ীতে গিয়ে শিক্ষার্থীদের বিদ্যালয়মুখী করার চেষ্টা করেন। ফলে মঙ্গলবার বিগত সময়ের চেয়ে ওই বিদ্যালয়ে শিক্ষার্থীদের সংখ্যা বেড়েছে।

এ ব্যাপারে প্রধান শিক্ষক ইয়াসিন আলী বলেন, “দীর্ঘ সময় করোনার কারণে বিদ্যালয় বন্ধ ছিল। এই সুযোগে অনেক শিক্ষার্থী বিভিন্ন নুরানিয়া মাদ্রাসায় ও কিন্ডারগার্ডেন স্কুলে চলে গেছে। আমি ও আমার সহকর্মিরা ম্যানেজিং কমিটির সহযোগীতা নিয়ে অত্র এলাকার সকল শিশুদের বিদ্যালয়মুখী করতে চেষ্টা করছি। তবে এ ক্ষেত্রে অভিভাবকদের সহযোগীতা অতীব জরুরি।

ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি রাবেয়া রিমি বলেন, ” করোনাকালীণ সময়ে স্কুল বন্ধ থাকায় এনজিও’র স্কুল, নুরানী মাদ্রাসা ও কিন্ডারগার্ডেন স্কুল খোলা থাকায় চাত্র সংকট দেখা দিয়েছে। আমরা এলাকার সকল শিশুদের বিদ্যালয়মুখী করতে চেষ্টা করছি”।

উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা (ভারপ্রাপ্ত) নুরুন নবী বলেন, “ওই বিদ্যালয়ের ছাত্র সংকট বিষয়টি দু:খজনক। প্রকাশিত সংবাদগুলো আমার দৃষ্টিগোচর হওয়া মাত্রই আমি প্রধান শিক্ষককে নোটিশ করা হয়েছে । এ ব্যাপারে উপজেলার কোন বিদ্যালয়কে ছাড় দেয়া হবেনা”।

আপনার মতামত প্রকাশ করেন

আপনার মন্তব্য দিন
আপনার নাম এন্ট্রি করুন