সিলেটে ৬০ লক্ষ টাকার সুপারি ছিনতাই,ঘটনায় জড়িত সন্দেহে আটক-৪

0
1

৬০ লক্ষ্য টাকার সুপারী ১৫ লক্ষ্য টাকায় বিত্রিু করে ভাগবাটোয়ারা করে চোরাকারবারী সিন্ডিকেট
জড়িত সন্দেহে ৪জন আটক, ৫৪ লক্ষ্য টাকার
সুপারী উদ্ধার, সিএমপিতে মামলা দায়ের।

জৈন্তাপুর প্রতিনিধিঃ জৈন্তাপুরে চট্রগ্রামের এক ব্যবসায়ীর ৬০ লক্ষ্য টাকার সুপারী ছিনতাই। ট্রাকের ড্রাইভার ও চোরাকারবারী সিন্ডিকেটের মাধ্যমে বিত্রিু হওয়া সুপারীগুলো উপজেলার বিভিন্ন স্থান থেকে অভিযান চালিয়ে উদ্ধার করেছে জৈন্তাপুর মডেল থানা পুলিশ। এ ঘটনায় সন্দেহভাজন ৪ জনকে আটক করা হয়েছে এবং উদ্ধারকৃত সুপারীগুলো সিএমপির কাছে হস্তান্তর করা হয়।
৮ জুলাই চট্রগ্রামের খাতুনগঞ্জ থেকে আব্দুল ওহাব লিটন নামের এক ব্যবসায়ীর ২শ বস্তা সুপারী নিয়ে সিলেটের উদ্দেশ্যে রওয়ানা করে একটি ট্রাক (যার নং ঢাকা মেট্রো ট-২০-৯৬৭০। মূলত সুপারী পরিবহনের জন্য নাছির এন্টারপ্রাইজ এই গাড়িটি ভাড়া করা হয়। সুপারীগুলো খালাস হওয়ার কথা সিলেট শহরের কাজিরবাজরের ফয়সাল ট্রের্ডি এ। কিন্তু গাড়ি চালকের কূ-মতলব থাকায় কাজিরবাজারের পরিবর্তে সুপারীবর্তী গাড়ি নিয়ে চলে যায় জৈন্তাপুর উপজেলায়। সেখানকার চোরাকারবারীদের সাথে চলে দফরফা। এক পর্যায় স্বল্প মূল্যে ভাগবাটোয়ারা করে কিনে নেয় চোরাকারবারী সিন্ডিকেট। একটি সূত্রে জানা যায়, জৈন্তাপুর উপজেলার চোরাকারবারী দরবস্ত ইউনিয়নের কূড়গ্রামের শাহীন আহমদ ও নিজপাট ইউনিয়নের সিদ্দিক আহমদ যোগসাজে ট্রাক ড্রাইভার সুপারীগুলো দরবস্ত ইউনিয়নের মানিক পাড়া নামক স্থানে নিয়ে এসে একটি চোরাকারবারী সিন্ডিকেটের কাছে ১৫ লক্ষ্য টাকা মূল্যে বিত্রিু করে পালিয়ে যায়। ৯ জুলাই পর্যন্ত চট্রোগ্রাম থেকে ছেড়ে আসা গাড়ি সিলেটের কাজির বাজার আড়ৎ এ না পৌছায় এবং গাড়ি চালকের মোবাইল ফোন বন্ধ থাকায় নাছির এন্টারপ্রাইজের স্বত্তাধীকারী আব্দুল ওহাব লিটন বাদী হয়ে চট্রোগ্রাম (সিএমপি) কোথোয়ালী থানায় একটি অভিযোগ দাখিল করেন। এরই প্রেক্ষিতে পুলিশ মোবাইল ট্রেকিং এর মাধ্যমে প্রথমে ট্রাকের সন্ধান পাওয়া যায় মৌলভিবাজার জেলার কুলাউড়া উপজেলায়। পরবর্তীতে জৈন্তাপুর মডেল থানার সার্বিক সহযোগিতায় এবং চট্রগ্রাম সিএমপির কোথোয়ালী থানার প্রতিনিধি সহ অভিযান পরিচালনা করে বিভিন্ন স্থান থেকে ১৮৩ বস্তা সুপারী উদ্ধার করা হয়। যার বাজার মূল্য প্রায় ৫৪ লক্ষ্য টাকা। এ ঘটনায় জড়িত সন্দেহে ৪ জনকে আটক করা হয়েছে এবং ৫ জনের নাম উল্লেখ করে সুপারীর মালিক বাদী হয়ে মামলা করেছেন। আটককৃতরা হলো ফয়সল আহমদ, নজরুল ইলসলাম, আজিজুল হক, টুটুল।
এব্যাপারে জৈন্তাপুর মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ গোলাম দস্তগীর আহমদ’র সাথে আলাপকালে তিনি জানান, আমরা প্রথমে চট্রগ্রামের কোথোয়ালী থানা থেকে সুপারী ছিনতাইয়ের এই ম্যাসেজ পাই। আর ছিনতাইয়ের ঘটনাস্থল জৈন্তাপুর হওয়ায় আমরা বিভিন্নভাবে খোজ খবর নিয়ে ছিনতাইকারীদের মোবাইল ট্রেকিং এর মাধ্যমে অভিযান শুরু করি। প্রায় ৪ দিন অভিযান করে জৈন্তাপুর ও কানাইঘাট উপজেলার বিভিন্ন স্থান থেকে মোট ১৮৩ বস্তা সুপারী উদ্ধার করে সিএমপি পুলিশের প্রতিনিধি দলের হাতে হস্তান্তর করি।

আপনার মতামত প্রকাশ করেন

আপনার মন্তব্য দিন
আপনার নাম এন্ট্রি করুন