হবিগঞ্জে কৃষকলীগ সভাপতি হুমায়ূন কবিরের বিরুদ্ধে মামলা

0
6

হবিগঞ্জ প্রতিনিধিঃ হবিগঞ্জ জেলা কৃষকলীগ সভাপতি হুমায়ুন কবীর রেজার বিরুদ্ধে সরকারি সম্পত্তি আত্মসাতের অভিযোগে ৩ কোটি ৩২ লাখ ৬৮ হাজার টাকা ক্ষতিপূরণের মামলা করেছে স্থানীয় ভূমি অফিস। জেলা প্রশাসনের নির্দেশে সোমবার রাতে তার বিরুদ্ধে বানিয়াচং থানায় মামলাটি দায়ের করেন বানিয়াচং উপজেলার খাগাউড়া ইউনিয়ন ভূমি অফিসের কর্মকর্তা দিদার হোসেন।
মামলার বিবরণে জানা যায়, ১৯৮৮-৮৯ সালে বানিয়াচং উপজেলার সুলতানপুর মৌজার ১৮.৮৮ একর জায়গা ১৭ জন ভূমিহীনের নামে বন্দোবস্ত দেয় সরকার। কিন্তু তাদের সরিয়ে দিয়ে এ জায়গা দখল করেন হুমায়ুন রেজা। সরকারের কোন অনুমতি না নিয়ে তিনি দখলকৃত জায়গার গাছ কাটা, মাছ বিক্রিসহ বিভিন্নভাবে আত্মসাত করে আসছিলেন। সরকারি জায়গা অবৈধভাবে দখল করে তিনি তৈরি করেছেন ধানি জমি। এছাড়া মসজিদ-মাদ্রাসা বানিয়ে তিনি দখল টিকিয়ে রাখার কৌশল নেন। অভিযোগে উল্লেখ করা হয়, সরকার কর্তৃক বনায়নকৃত ৫০টি গাছ কেটে বিক্রি করে দুই লাখ টাকা আত্মসাত করেন।
সরকারি জায়গা ৫ ফুট গর্ত করে মাটি বিক্রি করে ১ কোটি ৩০ লাখ টাকা আত্মসাত করেন। সরকারী জায়গায় বিশাল পুকুর খনন করে তিনি মাছ চাষ করেন। ১০ বছরে মাছ বিক্রি করে তিনি ২ কোটি টাকা আত্মসাত করেন।

মামলায় উল্লেখ করা হয়, সরকারি ভূমির শ্রেণি পরিবর্তন ও বনায়ন ধ্বংস করে অপূরণীয় ক্ষতিসাধন করেছেন। এ ব্যাপারে ক্ষতিগ্রস্থ ভূমিহীন পরিবারের পক্ষ থেকে গত ২১ ডিসেম্বর বানিয়াচংয়ের সহকারী কমিশনার (ভূমি) বরাবরে লিখিত অভিযোগ করা হয়। অভিযোগের ব্যাপারে তদন্ত করে সত্যতা পান স্থানীয় ভূমি অফিস কর্মকর্তারা। এ পরিপ্রেক্ষিতে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য ১ ফেব্রুয়ারী জেলা প্রশাসকের কাছে পাঠান উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা। পরে ১০ ফেব্রুয়ারী অভিযুক্ত হুমায়ুন কবীর রেজার বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য নির্দেশনা প্রদান করেন জেলা প্রশাসক কামরুল হাসান।
এ নির্দেশের পরিপ্রেক্ষিতে ইউনিয়ন ভূমি কর্মকর্তা বানিয়াচং থানায় এজাহার প্রদান করলে মামলা দায়ের হয়।
এ ব্যাপারে বানিয়াচং উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মাসুদ রানা জানান, হুমায়ন কবীর রেজা ভূমিহীনদের জায়গা দখল করে বিপূল পরিমাণ সরকারি সম্পত্তি আত্মসাত করেছেন। স্থানীয় ভূমিহীনদের অভিযোগের ভিত্তিতে একাধিকবার সরেজমিন তদন্ত করা হয়েছে। তদন্তে অভিযোগের সত্যতা পাওয়া গেছে। পরে জেলা প্রশাসনের নির্দেশে মামলা দায়ের করা হয়।
এ ব্যাপারে হুমায়ুন কবীর রেজার সাথে মোবাইলে একাধিকবার যোগাযোগ করা হলেও তিনি ফোন রিসিভ করেননি।

আপনার মতামত প্রকাশ করেন

আপনার মন্তব্য দিন
আপনার নাম এন্ট্রি করুন