হারিয়ে যাচ্ছে-দৃষ্টিনন্দন বাবুই পাখির বাসা!

0
10

এম হায়দার চৌধুরী, শায়েস্তাগঞ্জ (হবিগঞ্জ) প্রতিনিধি:: ধীরে-ধীরে দেশ থেকে হারিয়ে যাচ্ছে প্রকৃতির বয়নশিল্পী ও কারিগর বাবুই পাখি। পাশাপাশি দুষ্প্রাপ্য হয়ে যাচ্ছে তাদের বোনা দৃষ্টিনন্দন বাসাও। খেজুর গাছের পাতার বেত, তালপাতা, ঝাউ ও কাশবনের লতাপাতা দিয়ে বাবুই পাখিরা গগনচুম্বী তালগাছে বাসা বাঁধে। সেই বাসাগুলো দেখতে যেমন আকর্ষণীয় ও হৃদয়গ্রাহী, তেমনি মজবুতও বটে। কালবোশেখী ঝড়েও তাদের বাসা ঝড়ে পড়েনা। বাবুই পাখির সুকৌশল বুননের এ বাসাগুলো কারুশিল্পের এক অনন্য সৃষ্টি। বাংলাদেশজুড়েই বিশেষ করে গ্রামাঞ্চলে উঁচু তালগাছে বাবুই পাখির দৃষ্টিনন্দন বাসা পরিলক্ষিত হতো। এখন তা আর চোখে পড়ে না। পরিবেশ বিপর্যয়ের কারণে বাবুই পাখিরা বিলুপ্ত হতে যাচ্ছে।

বাবুই পাখিরে ডাকি, বলিছে চড়াই। কুড়েঘরে থেকে কর শিল্পের বড়াই। তালগাছের পাতার ডগায় ঝুলে থাকা বাবুই পাখির বোনা বাসার শৈল্পিক সৌন্দর্য নিমেষে দৃষ্টি কাড়ে আবালবৃদ্ধবনিতার। এ পাখির বাসার দৃষ্টিনন্দন কারুশিল্পির কল্পিত আলপনা যদি চড়ুই পাখি জানতো। তাহলে অট্টালিকা ছেড়ে কুড়েঘরে বসবাস করার জন্য বাবুই পাখির দ্বারস্থ হতো। এই দৃষ্টিনন্দন বাবুই পাখির বাসা, ধীরে ধীরে দুষ্প্রাপ্য হয়ে যাচ্ছে আমাদের পরিবেশ থেকে।

বাংলাদেশের গ্রামাঞ্চলের একটি ঐতিহ্যবাহী ক্ষুদ্র পাখির নাম বাবুই পাখি। গগণচুম্বী তালগাছের পাতার অগ্রভাগে দৃষ্টিনন্দন শৈল্পিক কৌশলে বাসা বোনার জন্য বাবুই পাখিরা বিখ্যাত। চোখ জুড়ানো, মন ভোলানো বাসা বোননে পারদর্শি বলে এরা “তাঁতি পাখি” নামেও পরিচিত। দেশের সর্বত্রই এদের দেখা যায়। তবে দিনাজপুর অঞ্চলে এদের বসবাস সবচেয়ে বেশি। বাবুই পাখির বাসার গঠন প্রণালী বেশ জটিল। কিছু প্রজাতির বাবুই পাখি একাধিক কক্ষবিশিষ্ট বাসা তৈরি করতে অভ্যস্ত। বাবুই পাখিরা দলবদ্ধভাবে বসবাস করতেও অভ্যস্ত। বাংলাদেশে বাংলা ও দাগি বাবুই পাখির প্রজাতি বিলুপ্তির পথে।

পল্লীবাংলার ঐতিহ্য ও চিরচেনা বাবুই পাখিদের এখন আর খুব একটা আগের মতো দেখা যায় না। মানুষেরা প্রয়োজনে অপ্রয়োজনে নির্বিচারে তালগাছ ও সুপারি গাছ কর্তনের ফলে বাবুই পাখিদের বসবাস উপযোগী পরিবেশ বিলুপ্ত প্রায়। এর ফলে হারিয়ে যাচ্ছে গ্রামবাংলার শৈল্পিক কারিগর ‘বাবুই পাখি’। কিছুদিন আগেও গ্রামবাংলার সর্বত্রই চোখে পড়তো চিরচেনা সেই বাবুই পাখি। সারিবদ্ধ তালগাছের পাতার ডগায় ঝুলতে থাকা বাবুই পাখির বাসা এখন আর দেখা যায় না। এখন আর কিচিরমিচির শব্দে মুখরিত হয় না গ্রামবাংলার জনপদ।

পৃথিবীতে বহু প্রজাতির বাবুই পাখির মধ্যে বাংলাদেশে রয়েছে মাত্র তিন প্রজাতির বাবুই পাখি। এরা হলো দেশি বাবুই, দাগি বাবুই ও বাংলা বাবুই। এছাড়া দক্ষিন এশিয়ার দেশ বাংলাদেশ, ভারত ও নেপালে বাবুই পাখির অস্তিত্ব মিলে। দেশের পরিবেশবিদরা মনে করেন, বাবুই পাখি ও এর শৈল্পিক নিদর্শন টিকিয়ে রাখতে জরুরি ভিত্তিতে উদ্যোগ গ্রহন করা আবশ্যক। তাছাড়া এক শ্রেণির রসনা বিলাশী শিকারী নির্বিঘ্নে বাবুই পাখিসহ বিভিন্ন প্রজাতির পাখি শিকার করে সাবার করে দিচ্ছে। এদের হাত থেকে বাবুই পাখিদের রক্ষা করতে জনসচেনতা তৈরী করা অতীব জরুরী।

পাখি শিকার নিষিদ্ধ আইন প্রয়োগ করে শিকারীর বিরুদ্ধে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিতে হবে তা না হলে বাবুই পখির পাশাপাশি আরও অনেক প্রজাতীর পাখি বিলুপ্ত হয়ে যাবে পরিবেশ থেকে। এর ফলে বাবুই পাখিসহ অন্য অতিথি পাখি এলাকা থেকে হারিয়ে গিয়ে পরিবেশে বিরূপ প্রভাব দেখা দিবে বলে মনে করেন পরিবেশ সচেতন মানুষ।

আপনার মতামত প্রকাশ করেন

আপনার মন্তব্য দিন
আপনার নাম এন্ট্রি করুন