৩ শতাধিক বছরের পুরনো বানিয়াচং ‘সোনা উল্লা জামে মসজিদ’ !

0
9

এম হায়দার চৌধুরী, শায়েস্তাগঞ্জ থেকে :: সিলেট বিভাগের হবিগঞ্জ জেলা প্রাচীন পুরাকীর্তির সূতিকাগার। জেলার বানিয়াচং সদর উপজেলার চানপাড়া এলাকায় অবস্থিত ৩শতাধিক বছরের পুরনো মুসলিম স্থাপত্যের নিদর্শন ‘সোনা উল্লা জামে মসজিদ’ বা ‘চান্দপাড়া জামে মসজিদ’। এটি সংস্কার ও সংরক্ষণ আবশ্যক বিধায় প্রত্নতাত্ত্বিক নিদর্শন হিসেবে সংস্কার ও সংরক্ষণ করার জন্য সংস্কৃতি বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রীর কাছে আবেদন করা হয়েছে। একইসাথে মসজিদটিকে পর্যটন সমৃদ্ধ স্থান হিসেবে তালিকাভুক্তির জন্য আবেদন করা হয়েছে। এ মসজিদ প্রতিষ্ঠাতার বংশধর মোঃ আব্দুর রেজ্জাক নামে এক ব্যক্তি এ আবেদন করেন। আবেদনটির অনুলিপি প্রত্নতত্ত্ব অধিদপ্তরের মহাপরিচালকসহ হবিগঞ্জের জেলা প্রশাসক, কুমিল্লার প্রত্নতত্ত্ব অধিদপ্তরের আঞ্চলিক পরিচালক, বানিয়াচংয়ের উপজেলা চেয়ারম্যান, বানিয়াচংয়ের নির্বাহী কর্মকর্তা ও থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তাকে প্রেরণ করা হয়েছে। আবেদনের সাথে কয়েকটি দৈনিক পত্রিকায় প্রকাশিত প্রতিবেদন সংযুক্ত করা হয়েছে।

অনুসন্ধানে জানা যায়, বানিয়াচংয়ের চান্দপাড়া জামে মসজিদটি প্রায় ১৭শত খ্রি.এর শেষের দিকে এলাকার ধনাঢ্য ব্যক্তি আনোয়ার মোহাম্মদ এর পুত্র সোনা উল্লাহ এ দৃষ্টিনন্দন মসজিদটি নির্মাণ করেন। বানিয়াচং উপজেলায় যে কয়টি মুসলিম স্থাপত্য রয়েছে, এ মসজিদ তার একটি অন্যতম নির্দশন বলে অভিমত ব্যক্ত করেছেন এলাকার বিশিষ্ট প্রবীণ ব্যক্তিবর্গ। এখনো এ মসজিদে শত শত মুসল্লি নামাজ আদায় করছেন। দূর-দূরান্ত থেকে লোকজন এসে মসজিদটির নির্মাণশৈলী দেখে মুগ্ধ হন। এ মসজিদটি এখন জরাজীর্ণ হয়ে পরিত্যক্ত অবস্থা রয়েছে।

সরকারের পূরাকীর্তি সংরক্ষণ অধিদপ্তর বা প্রত্নতাত্ত্বিক নিদর্শন অধিদপ্তরের মাধ্যমে সংস্কার করা হলে ঐতিহাসিক এ স্থাপনাটি সংরক্ষিত থাকবে। সংস্কারের পর হবিগঞ্জ জেলার পর্যটন স্থান হিসেবে চানপাড়া জামে মসজিদকে তালিকাভুক্তির আবেদন করেছেন মো. রেজ্জাক মিয়া।
এ ব্যাপারে মো. রেজ্জাক মিয়া জানান, এ মসজিদটি তার পূর্বপুরুষের হাতে নির্মিত। মসজিদটি মুসলিম স্থাপত্যকলার একটি নিদর্শন হয়ে থাকতে পারে। কিন্তু এলাকার কিছু লোক ঐতিহাসিক এ স্থাপনাকে ভেঙে নতুন মসজিদ নির্মাণ করার পাঁয়তারা করছে। ওই সকল লোকজন এরকম একটি পূরাকীর্তি সংরক্ষণের কোন প্রয়োজনীয়তা অনুভব করছেন না। তাই খুব দ্রুত এটিকে সংরক্ষণ ও সংস্কারে সরকারী হস্তক্ষেপ প্রয়োজন।

আপনার মতামত প্রকাশ করেন

আপনার মন্তব্য দিন
আপনার নাম এন্ট্রি করুন